Select Page

রান্নার জন্য উপযুক্ত তেল

রান্নার জন্য উপযুক্ত তেল কোনটা তা জানতে তেলের কিছু বিষয় জানা জরুরী

স্মোকিং পয়েন্টঃ যে তাপমাত্রায় তেল গরম হয়ে ধোঁয়া বের হয়।

চর্বি বা ফ্যাটঃ মূলত তিনটি ফ্যাটি অ্যাসিড মিলে তৈরি হয় তেল৷

  • স্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড বা SFA,
  • পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড বা ‘PUFA’ (মূলত Omega3 এবং Omega6 ফ্যাটি অ্যাসিড মিলে তৈরি হয়)
  • মনোআনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড বা ‘MUFA’ তাদের নাম৷

ট্রান্স ফ্যাট নামে একটি ক্ষতিকর উপাদান কখনও মেশানো হয় তাতে৷ এবার এদের মধ্যে কোনটা কী মাত্রায় আছে তার উপর নির্ভর করে তেলের ভাল–মন্দ৷

১০ গ্রাম তেলের মধ্যে—

  • ২ গ্রামের কম SFA থাকলে
  • ট্রান্স ফ্যাট না থাকলে
  • MUFA এর চেয়ে PUFA বেশ খানিকটা কম থাকলে তবেই সেই তেল হবে উঁচু মানের৷ সেই তেলে রান্না করা খাবার খেলে রক্তে ভাল কোলেস্টেরলের পরিমাণ বাড়ে, খারাপ কোলেস্টেরল কমে৷ দুইয়ের প্রভাবে ভাল থাকে হার্ট৷

আমরা সবচেয়ে বেশী পরিচিত সয়াবীন- রান্নার কাজে এবং সরিষা- ভর্তা, মুড়িমাখা, আঁচার ইত্যাদিতে। সুপ্রাচীন কাল থেকেই আমাদের দেশে সরিষার তেলের প্রচলন ছিল সবচেয়ে বেশি।

এখন মানুষ অনেক সচেতন। বাজারে বিভিন্ন তেলের আধিক্য এবং বাহারি বিজ্ঞাপনের মাঝে সিদ্ধান্ত নিতে পারে না যে রান্নার জন্য কোন তেল ভাল। আজ আমরা পরিচিত করাব বিভিন্ন রকম উপকারী কোল্ড প্রেস তেল সম্বন্ধে।

হৃদযন্ত্রের সুস্থতায় তেল যেমন গুরুত্বপূর্ণ, তেমনি হাড় ও ত্বকের সুস্থতায়ও এটি অপরিহার্য। তবে পুষ্টিগুণ পুরোপুরি পেতে রান্নার ধরন অনুযায়ী তেল ব্যবহারও গুরুত্বপূর্ণ। বেশি আঁচে রান্নার জন্য যে তেল উপযোগী, সেই তেল দিয়ে আবার ভর্তা বা সালাদ না করাই ভালো।

রান্নায় ভাল এবং স্বাস্থ্যকর তেল যা আমাদের দেশে পাওয়া যায়ঃ

  • এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ ওয়েল
  • সূর্যমুখী তেল
  • সরিষা তেল
  • চীনাবাদাম তেল
  • নারিকেল তেল
  • তিলের তেল

রান্নার জন্য উপযুক্ত তেল কোনটা তার সম্বন্ধে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন তেলের নামের উপরে। সিদ্ধান্ত নিন নিজেই।

রান্নার জন্য কোন তেল ভালঃ ভাল করে ভাজাভুজি করে রান্না করতে গেলে এমন তেলে করা উচিত – যা উচ্চ তাপে ভেঙে গিয়ে খারাপ রাসায়নিক তৈরি করতে না পারে৷ যেমন, বাদাম, সরিষা, সূর্যমুখী বা তিল তেল৷

অলিভ অয়েলের স্মোক পয়েন্ট বেশ কম৷ সে কারণে সাধারণ ঝাল–ঝোল বা ভাজাভুজিতে ব্যবহার না করে শাক–সব্জি–মাছ, স্টিম বা স্যুপ করার জন্য বা সালাদ বানানোর সময় ব্যবহার করা ভাল৷ সব রকম ফ্যাটি অ্যাসিডের গুণ পেতে তেল মিলিয়ে–মিশিয়ে ব্যবহার করা উচিত৷ যেমনঃ সূর্যমুখী, বাদাম তেল, সরিষা ও অলিভ ।

ভাজাভুজির পর বেঁচে যাওয়া তেল পরে আর ব্যবহার করবেন না৷ এতে প্রচুর ক্ষতি হয় শরীরের৷ যার মধ্যে অন্যতম হল ক্যানসার৷

তেলের উপকার পূর্ণ মাত্রায় পেতে গেলে দিনের এক একটা পদ এক একটা তেলে রান্না করা ভাল৷ কিংবা ১৫ দিন/এক মাস এক ধরনের তেল ব্যবহার করে পরের পর্বে অন্য তেল ব্যবহার করতে পারেন৷

সচেতন হন, সুস্থ থাকুন। কোল্ড প্রেস তেল ব্যবহার করুন

বিঃদ্রঃ তেল কিনুন বিশ্বস্ত উৎস থেকে। কিভাবে প্রসেস হচ্ছে ভিডিওতে বা সরাসরি দেখে কিনুন। যেখানে নিজের ও পরিবারের স্বাস্থ্যের দিক জড়িত তা কোন ভাবেই হেলাফেলার বিষয় নয়।

যদি কোন জিজ্ঞাসা থাকে তো আপন মনে করে একটা মেসেজ দিন।

তথ্য সূত্রঃ BBC, Time, Webmd, কালের কন্ঠ প্ত্রিকা, আনন্দবাজার কলকাতার পত্রিকা